[fusion_builder_container hundred_percent=”no” hundred_percent_height=”no” hundred_percent_height_scroll=”no” hundred_percent_height_center_content=”yes” equal_height_columns=”no” menu_anchor=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” status=”published” publish_date=”” class=”” id=”” link_color=”” link_hover_color=”” border_size=”” border_color=”” border_style=”solid” margin_top=”” margin_bottom=”” padding_top=”” padding_right=”” padding_bottom=”” padding_left=”” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” background_position=”center center” background_repeat=”no-repeat” fade=”no” background_parallax=”none” enable_mobile=”no” parallax_speed=”0.3″ background_blend_mode=”none” video_mp4=”” video_webm=”” video_ogv=”” video_url=”” video_aspect_ratio=”16:9″ video_loop=”yes” video_mute=”yes” video_preview_image=”” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″][fusion_builder_row][fusion_builder_column type=”1_4″ layout=”1_4″ spacing=”” center_content=”no” link=”” target=”_self” min_height=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” hover_type=”none” border_size=”0″ border_color=”” border_style=”solid” border_position=”all” border_radius=”” box_shadow=”no” dimension_box_shadow=”” box_shadow_blur=”0″ box_shadow_spread=”0″ box_shadow_color=”” box_shadow_style=”” padding_top=”” padding_right=”” padding_bottom=”” padding_left=”” margin_top=”” margin_bottom=”” background_type=”single” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” background_image_id=”” background_position=”left top” background_repeat=”no-repeat” background_blend_mode=”none” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” filter_type=”regular” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″ last=”no”][/fusion_builder_column][fusion_builder_column type=”3_4″ layout=”3_4″ spacing=”” center_content=”no” link=”” target=”_self” min_height=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” background_image_id=”” hover_type=”none” border_size=”0″ border_color=”” border_style=”solid” border_position=”all” border_radius_top_left=”” border_radius_top_right=”” border_radius_bottom_right=”” border_radius_bottom_left=”” box_shadow=”yes” box_shadow_vertical=”5″ box_shadow_horizontal=”5″ box_shadow_blur=”10″ box_shadow_spread=”5″ box_shadow_color=”#aaaaaa” box_shadow_style=”” padding_top=”20″ padding_right=”20″ padding_bottom=”20″ padding_left=”20″ margin_top=”” margin_bottom=”” background_type=”single” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” background_position=”left top” background_repeat=”no-repeat” background_blend_mode=”none” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” filter_type=”regular” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″ last=”no”][fusion_title title_type=”text” rotation_effect=”bounceIn” display_time=”1200″ highlight_effect=”circle” loop_animation=”off” highlight_width=”9″ highlight_top_margin=”0″ before_text=”” rotation_text=”” highlight_text=”” after_text=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” content_align=”left” size=”3″ font_size=”” animated_font_size=”” fusion_font_family_title_font=”” fusion_font_subset_title_font=”” fusion_font_variant_title_font=”” line_height=”” letter_spacing=”” margin_top=”” margin_bottom=”” margin_top_mobile=”” margin_bottom_mobile=”” text_color=”” animated_text_color=”” highlight_color=”” style_type=”underline solid” sep_color=”#aaaaaa” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্প[/fusion_title][fusion_text columns=”” column_min_width=”” column_spacing=”” rule_style=”default” rule_size=”” rule_color=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

১৯৮৯ সালের মার্চ মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পের যাত্রা শুরু হয়। তৎকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ছিলেন ড. মোঃ মসিহুজ্জামান, (রসায়ন বিভাগ) এবং সম্পাদক ছিলেন অধ্যাপক ড. এম এ মাননান (ব্যবস্থাপনা বিভাগ)। প্রধানত এই দুই জন সম্মানীয় শিক্ষকের নেতৃত্বে ২০ (বিশ) সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করে তাদের পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন গড়ে উঠে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তারা দুজন অত্র প্রকল্পে সভাপতি ও সম্পাদকের দায়িত্ব দীর্ঘ ১৪ বছর পালন করেন ।
শুরুতেই সীমিত পরিসরে এর কার্যক্রম চললেও বর্তমানে এটি একটি সুপরিকল্পিত বৃহৎ আবাসন প্রকল্পের রূপ লাভ করেছে। নাগরিক কোলাহল মুক্ত পরিবেশে সবুজ প্রকৃতি আর নিরাপত্তার দেয়লে ঘেরা এ আবাসন প্রকল্পটি হতে পারে ভবিষ্যতে আপনার স্বপ্নের ঠিকানা।
অবস্থান
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পে মূলত দক্ষিণ পানিশাইল মৌজার, কাশিমপুর,গাজীপুর সিটি করর্পোরেশন অর্ন্তভুক্ত গাজীপুর সদর উপজেলা। (বিকেএসপির বিপরীত দিকে একটু ভিতরে, সোনালিপল্লীর পাশে).
আয়েতন/ আকার
আবাসন প্রকল্পের প্লট সংখ্যা: প্রকল্পের ভিতর বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা রেখে ৮৫ একর বা ২৫৫ বিঘা জমিতে ৬২৮টি প্লট তৈরী করা হয়ছে। প্রতিটি প্লট পোনে পাঁচ কাঠা। প্রতিটি প্লটের সাথে চওড়া রাস্তা, স্কুল, কলেজ, সপিংমল, মসজিদ, কমিউনিটি সেন্টারসহ সবধরণের সুযোগ-সুবিধা রাখা হয়েছে।

প্লট বরাদ্দের ধরন ও প্রাপ্যতা: লটারীর মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক/শিক্ষিকার মধ্যে প্লট বরাদ্দ প্রদান করা হয়।
সম্প্রতি (২০২১) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বাইরেও শর্তসাপেক্ষে নির্ধারিত কিছু পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিকট প্লট বরাদ্দ বা বিক্রির জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে।
সমবায় সমিতির অধিভুক্ত লিমিটেড কোম্পানি
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক আবাসন প্রকল্পটি ১৯৯০ সাল থেকে সমবায় সমিতির অধিভুক্ত করা হয় যার রেজিস্ট্রেশন নং-৪০। এর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেড নামে পরিচিতি লাভ করেন।
ভবিষ্যতে এটি একটি আধুনিক সেটেলাইট সিটি হবার অপেক্ষায়।

[/fusion_text][/fusion_builder_column][/fusion_builder_row][/fusion_builder_container]